Pathikar ranna
Sananda fashion

মালাইকারি কিংবা লাউ-চিংড়ির স্বাদের সত্যিই কোনও বিকল্প নেই। তবে এই চেনা স্বাদের বাইরেও চিংড়ি সমান স্বচ্ছন্দ্য। চিংড়ির কিছু ভিন্ন স্বাদের রেসিপি শেখালেন সোমা চৌধুরী

g

কুণ্ডাপুরী প্রন

উপকরণ: বাগদা চিংড়ি (মাঝারি মাপের) ৬ টা, রসুন ৮-১০ কোয়া, আদা ২ ইঞ্চি, কাঁচালঙ্কা ৪টে, কারিপাতা ৫-৬ টা, নারকেল ১/৪ টা (কোরানো), শুকনোলঙ্কা ২টো, নুন ও চিনি স্বাদমতো, লেবুর রস ১ চা-চামচ, নারকেলের দুধ ৩-৪ চামচ, সাদা তেল পরিমাণমতো, পুদিনাপাতা ৪-৫টা, ধনেপাতাকুচি ৪-৫ টা।

প্রণালী: চিংড়ি ভাল করে ধুয়ে নিন। আদা, রসুন, কাঁচালঙ্কা, ধনেপাতা এবং পুদিনাপাতা একসঙ্গে বেটে নিন। কড়াইতে অল্প সাদাতেল গরম করে চিংড়িগুলো হালকা বাদামি করে ভেজে তুলে রাখুন। ওই তেলে কারিপাতা ফোড়ন দিন। এরপর শুকনোলঙ্কা দিন। সুগন্ধ বেরলে নারকেলকোরা দিয়ে নাড়াচাড়া করতে থাকুন। মশলা ভালমতো ভাজা হলে আদা-রসুন-পুদিনাবাটা মিশিয়ে দিন। ভালভাবে কষান। ভেজে রাখা চিংড়িগুলো মেশান। স্বাদমতো নুন, চিনি ও পাতিলেবুর রস মিশিয়ে নিন। সামান্য জলের ছিটে দিয়ে ২-৩ মিনিট ফুটতে দিন। নারকেলের দুধ মেশান। মিশ্রণ ফুটে ঘন হয়ে এলে নামিয়ে কারিপাতা এবং পুদিনাপাতা দিয়ে সাজিয়ে পরিবেশন করুন।

- – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – -

প্রন দমপক্ত

উপকরণ: গলদা চিংড়ি (মাঝারি কিংবা বড় মাপের) ৬ টা, পেঁয়াজ ৩ টে (কুচিয়ে ভেজে নেওয়া), কাজুবাদাম ১০ গ্রাম, ছোট এলাচ ৩টে, দারচিনি ১টা, তেজপাতা ১টা, জয়িত্রী ও জায়ফল অল্প, টোম্যাটো ১টা (সিদ্ধ করে বেটে নেওয়া), আদা-রসুনবাটা ১১/২ চা-চামচ, হলুদগুঁড়ো ১/৪ চা-চামচ, কাশ্মীরী লঙ্কাগুঁড়ো ১ চা-চামচ, ধনেগুঁড়ো ১/২ চা-চামচ, মৌরিগুঁড়ো ১/২ চা-চামচ, ক্যাপসিকাম ১টা, ঘি ২ চা-চামচ, সাদাতেল পরিমাণমতো, নুন ও চিনি স্বাদমতো, চারমগজবাটা ১ চা-চামচ, ফ্রেশ ক্রিম ১ চা-চামচ।

প্রণালী: ভাজা পেঁয়াজ, কাজুবাদাম, ছোট এলাচ, দারচিনি, তেজপাতা, জয়িত্রী, জায়ফল এবং চারমগজ একসঙ্গে বেটে নিন। কড়াইতে সাদাতেল ও ঘি গরম করুন। চিংড়িগুলো ভেজে তুলে রাখুন। কড়াইতে আদা-রসুনবাটা দিয়ে কষিয়ে নিন। মশলা থেকে তেল বেরলে হলুদগুঁড়ো, শুকনোলঙ্কাগুঁড়ো, ধনেগুঁড়ো, মৌরিগুঁড়ো দিয়ে সামান্য নেড়ে পেঁয়াজের মিশ্রণ ঢেলে দিন। ভালভাবে কষিয়ে ভেজে রাখা চিংড়িগুলো দিন। অল্প জল দিতে পারেন। স্বাদমতো নুন, চিনি ও ফ্রেশ ক্রিম মিশিয়ে কড়াই ঢেকে দিন। খেয়াল রাখবেন যেন কোনও স্টিম বেরতে না পারে। ১০ মিনিট এভাবে রাখুন। অন্য কড়াইতে তেল গরম করে ক্যাপসিকাম কুচিয়ে ভেজে নিন। চিংড়িগুলো ১০ মিনিট দমে রাখার পর ক্যাপসিকাম ছড়িয়ে আঁচ বন্ধ করে ঢেকে ১১/২ ঘণ্টা রাখুন। ঢাকা খুলে গরম গরম পরিবেশন করুন।

- – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – -

কোলাম্বি বাথ

উপকরণ: বাসমতী চাল ৫০০ গ্রাম, ছোট চিংড়ি ৩০০ গ্রাম, পেঁয়াজ ২টো (কুচোনো), টোম্যাটো ২টো (কুচোনো), রসুন ও আদাবাটা ১ চা-চামচ, হলুদ সামান্য, শুকনোলঙ্কাগুঁড়ো ১ চা-চামচ, কাশ্মীরি লঙ্কাগুঁড়ো ১ চা-চামচ, গোটা গরমমশলা ১ চা-চামচ, গোটা জিরে ১/২ চা-চামচ, শাহী গরমমশলাগুঁড়ো ১ চা-চামচ, ধনেপাতা ও পুদিনাপাতাবাটা ১ চা-চামচ, নারকেলের দুধ ১ কাপ, নুন ও চিনি স্বাদমতো, পাতিলেবু ১টা (শুধু রস), সাদাতেল পরিমাণমতো।

প্রণালী: চিংড়িগুলো পাতিলেবুর রস, হলুদগুঁড়ো, শুকনোলঙ্কাগুঁড়ো এবং স্বাদমতো নুন দিয়ে ১০-১৫ মিনিট ম্যারিনেট করে রাখুন। বাসমতী চাল ধুয়ে জলে ভিজিয়ে রাখুন। কড়াইতে সাদাতেল গরম করে গোটা জিরে, তেজপাতা ও গোটা গরমমশলা ফোড়ন দিন। সুগন্ধ বেরলে পেঁয়াজকুচি দিন। পেঁয়াজে রং ধরলে টোম্যাটোকুচি ও স্বাদমতো নুন মেশান। টোম্যাটো নরম হলে আদা-রসুনবাটা দিয়ে কষে ম্যারিনেট করে রাখা চিংড়িগুলো দিন। মশলা এবং চিংড়ি মিশে গেলে ধনেপাতা ও পুদিনাপাতাবাটা এবং নারকেলের দুধ মেশান। ভিজিয়ে রাখা বাসমতী চাল মিশিয়ে নাড়াচাড়া করে নিন। স্বাদমতো নুন, চিনি দিয়ে ২ কাপ জল দিন। ঢাকা বন্ধ করে রাখুন। ৫-৭ মিনিট পর ঢাকা খুলে দেখে নিন ভাত ঝরঝরে হয়েছে কি না। এরপর আঁচ বন্ধ করে রেখে দিন। আধঘণ্টা রেখে ঢাকনা খুলে গরম গরম পরিবেশন করুন।

- – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – -

কিউকাম্বার প্রন

উপকরণ: কচি সবুজ শসা ৪টে, ছোট চিংড়ি ১০০ গ্রাম, হলুদগুঁড়ো ১/২ চা-চামচ, শুকনোলঙ্কাগুঁড়ো (অপশনাল) ১ চা-চামচ, কালোজিরে ১ চা-চামচ, কাঁচালঙ্কা ৪-৫টা, ধনেপাতাকুচি ২ চা-চামচ, সরষের তেল ২ চা-চামচ, নুন ও চিনি স্বাদমতো, নারকেলকোরা ২ চা-চামচ।

প্রণালী: চিংড়ি ভালভাবে ধুয়ে নুন-হলুদ মাখিয়ে তেলে হালকা সাঁতলে নিন। শসাগুলো ডুমো ডুমো করে কেটে নিন। কড়াইতে সরষের তেল গরম করে কাঁচালঙ্কা ও কালোজিরে ফোড়ন দিন। সুগন্ধ বেরলে শসার টুকরো দিন। একটু ভাজা ভাজা হলে চিংড়ি, হলুদগুঁড়ো ও শুকনোলঙ্কাগুঁড়ো মেশান। মশলা মিশে গেলে নারকেলকোরা দিয়ে নাড়াচাড়া করে জল দিন। মিশ্রণ মোটামুটি ঘন হলে ধানপাতাকুচি ছড়িয়ে নামিয়ে পরিবেশন করুন।

travel
facebook
facebook