Ranna banna
Sananda fashion

ওপার বাংলার বিভিন্ন রকম মাছের রেসিপি

বাঙালির রসনার বাসনা তৃপ্ত করে ঝালেঝোলে মাছের নানা রকম রেসিপি। কিন্তু সেই মাছের রেসিপি যদি হয় বাংলাদেশের আদলে তাহলে কেমন হয়? ওপার বংলার বিভিন্ন জায়গার মাছের রেসিপি নিজে হাজির হলাম আপনার রান্নাঘরে।

g

ময়মনসিংহের কাঁচা পাবদার ঝাল

উপকরণ: পাবদা মাছ ৪টে ১০০ গ্রাম করে, কালোজিরে ১/৪ চা চামচ, আদাবাটা ১ চা চামচ, হলুদগুঁড়ো ১/২ চা চামচ, লংকাগুঁড়ো ১/২ চা চামচ, জিরেগুঁড়ো ১/২ চা চামচ, ১টা বড় কাঁচা টমেটোবাটা, নুন পরিমাণ মতো, কাঁচা লংকা ঝাল অনুযায়ী, সরষের তেল প্রয়োজন মতো, ধনেপাতা।

প্রণালী: কড়াইতে তেল বেশি করে দিয়ে কালো জিরে ও কাঁচা লংকা, জিরে ফোড়ন দিয়ে কিছুক্ষণ নেড়ে আদাবাটা দিয়ে সামান্য জল দিয়ে কষিয়ে নিতে হবে। এবার একটা বাটিতে সামান্য জল, হলুদগুঁড়ো, লংকাগুঁড়ো, জিরেগুঁড়ো দিয়ে ভাল করে মিশিয়ে নিতে হবে। এবার টমেটোবাটা দিয়ে কষিয়ে নিয়ে, গোটা মশলাটাও সামান্য নুন দিয়ে কষিয়ে গ্রেভিটা হলে হলুদ দিয়ে মাখানো কাঁচা মাছগুলো দিয়ে দিতে হবে। ঢিমে আঁচে ঢাকা দিয়ে মাছটা এক পিঠ হয়ে গেলে উল্টো করে অন্য পিঠটাও করতে হবে। কিছুক্ষণ হওয়ার পর সামান্য জল দিয়ে ফুটে উঠলে নামিয়ে ধনেপাতা কুচি ছড়িয়ে উপরে কাঁচা সরষের তেল ছড়িয়ে দিতে হবে। এরপর গরম-গরম পরিবেশন করতে হবে। এই রান্নাটিতে সরষের তেল একটু বেশি লাগবে।

ঢাকার সবজি দিয়ে নোনা ইলিশ

উপকরণ: নোনা ইলিশ ৪ পিস, বেগুন এক ফালি, ঝিঙে ১টা, কুমড়ো এক ফালি, কালোজিরে বাটা বা গোটা ফোড়ন, কাঁচালঙ্কা স্বাদ অনুযায়ী, হলুদগুঁড়ো ১ চা চামচ, লঙ্কাগুড়ো ১ চা চামচ, সরষের তেল প্রয়োজন মতো।

প্রণালী: বেগুন, ঝিঙে, কুমড়ো ছোট করে কেটে ধুয়ে নেব। নোনা ইলিশ বাজার থেকে এনে গরম জলে কিছুক্ষণ রেখে ভাল করে ধুয়ে নেব যাতে নুনটা পরিষ্কার হয়ে যায়। এবার কড়াইতে তেল দিয়ে গরম করে মাছগুলো সামান্য হলুদগুঁড়ো দিয়ে মাখিয়ে হাল্কা করে ভেজে নেব। এবার ওই তেলে আরো কিছুটা তেল দিয়ে বেগুন, কুমড়ো, ঝিঙে ভেজে তুলে নেব। এবার ওই তেলে কালো জিরে ও কাঁচালঙ্কা ফোড়ন বা বাটা দিয়ে নেড়ে নিয়ে সবজিগুলো দিয়ে নেড়ে নিয়ে হলুদ, লঙ্কাগুঁড়ো, নুন দিয়ে কষিয়ে নিয়ে পরিমাণমত জল দিয়ে ফুটে উঠলে মাছগুলো দিয়ে ঢিমে আঁচে রান্না করব কিছুক্ষণ। নামিয়ে গরম গরম পরিবেশন করব।(সবজিগুলো আলাদা করে না ‌ভেজে) ফোড়ন দিয়ে একসাথেও কষিয়ে নেওয়া যায়।

facebook
facebook