Swastha
x

পিঠে ব্যথার সমস্যা

g

পেনকিলার বা সার্জারি নয়, পিঠে ব্যাথার সমস্যার সবচেয়ে সহজ এবং কার্যকরী সমাধান সঠিক এক্সারসাইজ়। জানাচ্ছেন ফিটনেস ও লাইফস্টাইল এক্সপার্ট নওয়াজ় মোদী সিংহানিয়া
- – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - – - -

পিঠে ব্যথার সমস্যার কথা এখন প্রায়ই সোনা যায়। অনেকেই রয়েছেন যাঁরা অনেক কম বয়সেই পিঠে ব্যথার শিকার হয়ে পড়েন। পেন কিলারে সাময়িকভাবে ব্যথা কমলেও আবার ক’দিন বাদে তা ফিরে আসে। ব্যথা মারাত্মক আকার নিলে অনেকে সার্জারির কথাও ভাবতেও পিছপা হন না। অথচ জানেন কি, পিঠে ব্যথা কমানোর সবচেয়ে সহজ উপায় একেসারসাইজ়। শুলে অবাক হবেন প্রতিদিন মাত্র ৮-১০ মিনিট এক্সারসাইজ় করলে দু’সপ্তাহের মধ্যে পিঠে ব্যথার সমস্যা থেকে অনেকটা রেহাই পাওয়া যায়।

পিঠে ব্যথার সমস্যায় লোয়ার ব্যাক স্ট্রেচ খুব ভাল কাজ দেয়। এই ধরনের এক্সারসাইজ়ে লোয়ার ব্যাকের পেশিগুলি শক্তিশালী হয়ে ওঠে এবং নমনীয়তা বাড়ে। পিঠে ব্যথা কমাতে ‘গুড মর্নিং’ এক্সারসাইজ়ও খুব ভাল কাজ দেয়। এই এক্সারসাইজ় করা হয় ওজনের সাহায্যে। তবে ব্যক পেনের সমস্যায় ব্যায়াম বেছে নেওয়ার আগে একজন ডাক্তার বা ফিটনেস এক্সপার্টের পরামর্শ নেওয়া জরুরি। আপনার বয়স, শারীরিক সক্ষমতা, ব্যথার ধরন, কমফোর্ট লেভেল এই সবকিছুর উপরে নির্ভর করবে কী ধরনের এক্সারসাইজ় আপনার জন্য উপযুক্ত।

এক্সারসাইজ় ছাড়াও আরও কয়েকটি বিষয়ে খেয়াল রাখা জরুরি

আপনার বসা, হাঁটা, শোয়ার ধরন কিন্তু পিঠের পেশির উপর প্রভাব ফেলে। তাই সবসবয় চেষ্টা করুন শরীরের সঠিক পশ্চার ধরে রাখতে। পিঠ সোজা রেখে বসুন, টানটান হয়ে হাঁটুন। ধীরে ধীরে এটাই আপনার অভ্যেসে দাঁড়িয়ে যাবে।

সকালে ঘুম ভাঙার পর হঠাৎ করে উঠে বসবেন না। এতে পিঠে আচমকা আঘাত লাগতে পারে। ঘুম ভাঙার পর প্রথমে পাশ ফিরুন, হাঁটু ভাঁজ করে রাখুন। এবার হাতের উপর ভার দিয়ে ধীরে ধীরে পা মেঝেতে নামিয়ে রেখে উঠে বসুন। এবার পিঠ সোজ রেখে উঠে দাঁড়ান।

সবসময় সোজা হয়ে দাঁড়ান। দাঁড়ানোর সময় পেট এবং বাট মাসলকে ভিতর দিকে টেনে রাখুন। পেটের মাসল টানটান করে রাখলে তা পিঠকে অনেকটাই সার্পোট দিতে পারে। এই ধরনের অভ্যেসগুলো আপনার পশ্চার সুন্দর করার পাশাপাশি আপনার ব্যাক পেনের সমস্যাকে দূর করতেও সাহায্য করবে।

পিঠ ব্যথার সমস্যার জন্য দীর্ঘক্ষণ বসে থাকা অনেকটাই দায়ী। আপনি কী ধরনের চেয়ারে বসছেন তার চেয়েও বেশি গুরুত্বপূর্ণ আপনি দিনের মধ্যে কতটা সময় সিটিং পজ়িশনে থাকছেন। আসলে বসে থাকা অবস্থায় পিঠের উপর সবচেয়ে বেশি চাপ পড়ে। তাই একটানা অনেকক্ষণ বসে থাকবেন না। নির্দিষ্ট সময় অন্তর উঠে দাঁড়ান, সম্ভব হলে একটু হেঁটে আসুন। অনেকেই চেয়ারে বসে সামনের দিকে ঝুঁকে পড়েন অথবা খুব বেশি পিছনে হেলে থাকেন বা পায়ের উপর পা তুলে বসেন। এই সব দু’ক্ষেত্রেই পিঠের উপর চাপ বেশি পড়ে। চেষ্টা করুন কাজের জায়গায় একটা ফুটস্টুল বা ফুটবার রাখতে। এতে আপনার সোজা হয়ে বসতে সুবিধা হবে এবং থাইয়ের ভারটাও পিঠের উপর পড়বে না।

facebook
facebook